প্রাথমিকে প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপে শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা বাতিলের দাবি

প্রাথমিকে প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপের পরীক্ষা বাতিলের দাবি

প্রশ্নফাঁসের অভিযোগ এনে প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক নিয়োগের প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপের পরিক্ষা বাতিল ও পুনরায় পরীক্ষার দাবিতে মানববন্ধন করেছেন প্রশ্নফাঁসবিরোধী শিক্ষার্থীরা।

শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন করেন তারা। এতে পরীক্ষার্থীদের পাশাপাশি অংশ নেন বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নেতাকর্মীরা।

এদিকে গত ২৪ মে প্রথম ধাপের এবং ৩১ মে দ্বিতীয় ধাপে অনুষ্ঠিত প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁসসহ নানা ধরনের জালিয়াতির অভিযোগ ওঠে।

আরও পড়ুনঃ ৫০৩টি মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয় করবে সরকার

বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরষদের যুগ্ম আহ্বায়ক মো. তারেক রহমান বলেন, ‘প্রশ্নফাঁসকারীদের বারবার জামিন দিয়ে সরকার প্রশ্নফাঁসকারীদের পক্ষ নিয়েছে। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর (ডিপিই) মহাপরিচালক বলেছিলেন, তদন্ত কমিটি জুন মাসের শেষ সপ্তাহে তদন্ত প্রতিবেদন দেবে। কিন্তু আজ জুলাই মাসের ১২ দিন অতিবাহিত হতে যাচ্ছে, তদন্ত আর শেষ হচ্ছে না।’

তিনি বলেন, আমরা স্পষ্ট করে বলতে চাই, তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ না করে পরীক্ষার ফলাফল দিলে বাংলার ছাত্র-সমাজকে নিয়ে গণআন্দোলন গড়ে তোলা হবে।

তারেক রহমান বলেন, আমরা আশা করি না, এই প্রশ্নফাঁসের কারণে হতাশ হয়ে কোনো শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করুক। যদি তেমন কিছু হয়, তাহলে সেটা আমাদের জন্য চরম দুঃখের হবে।

বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম-আহ্বায়ক মো. সোহরাব হোসেন বলেন, প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁস হয়েছে, সেটা প্রমাণিত। বিভিন্ন গণমাধ্যমে সেটার প্রমাণ মিলেছে। প্রশ্নফাঁস যারা করেছেন, তারা আটকও হয়েছেন, জামিনেও ছাড়া পেয়েছেন। এমন অবস্থায় প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপে অনুষ্ঠিত পরীক্ষা বাতিলে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে যথাযথ কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করছি। সূত্রঃ বাংলাদেশ জার্নাল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*